চাঁদপুরে শিশু ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার

চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলার ঈশানবালায় শিশু মারজানকে ধর্ষণ ও হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি সেলিম বেপারীকে (২২) পুলিশ গাজীপুর থেকে গ্রেফতার করেছে।

এর আগেই নান্নু চৌকিদার নামে একজনকে আটকের পর নিজেসহ ৪ জনের সম্পৃক্ততার কথা আদালতে স্বীকার করে।

মারজানের বাবা মুকশেদ হাওলাদার ১০ জানুয়ারি ২০১৮ সালে ঈশানবালার জালাল মিয়া হাওলাদার (২১), সিদ্দীক (২২) ও সেলিম বেপারীদের আসামি করে আদালতে মামলা দায়ের করেন।

আদালত ওসি হাইমচর থানাকে সরাসরি মামলা রুজুর আদেশ দিলে হাইমচর থানায় ১৬ জানুয়ারি মামলা হয়। পরে নান্ন চৌকিদারকে গ্রেফতার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে নান্নু নিজেসহ এজাহার নামীয় ৩ আসামি মারজানকে ধর্ষণ ও হত্যার লোমহর্ষক বিবরণ দেয় এবং আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে ৭ জুন দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটনের টঙ্গী পশ্চিম থানা এলাকায় এসআই রেজাউল করিম আসামি সেলিম বেপারীকে গ্রেফতার করেন।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, স্থানীয় ঈশানবালা বাজারের দোকানদার মুকশেদ হাওলাদারের মেয়ে মারজান (৯)।

সে চর কোড়ালিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। তার মা মারজানকে ১০০ টাকা দিয়ে বাজারে পাঠায়। বাজারে বাবার কাছে যাওয়ার পথে স্থানীয় চৌকিদার নান্নু মিয়া মারজানের মুখ চেপে ধরে জনৈক নাসির সর্দারের পরিত্যক্ত একটি ঘরে নিয়ে সেসহ ৪ জন জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এতে মারজান জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে তাকে গলা টিপে হত্যা করে।

আরও খবর